ধেয়ে আসছে চী-না রকেটের ধ্বং’সাবশেষ, জানা যাচ্ছে না কোথায় পড়বে

ধেয়ে আসছে চী-না রকেটের ধ্বং’সাবশেষ, জানা যাচ্ছে না কোথায় পড়বে

কোথায় পড়বে চী-না রকেটের ধ্বং’সাবশেষ তা নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে বিশ্বজুড়ে। এ সপ্তাহেই এটি পৃথিবীতে আছড়ে পড়বে। এটি কোথায় আছড়ে পড়বে তা নিয়ন্ত্রণের কোনো উপায় না থাকাতে মানুষ উদ্বিগ্ন হয়ে উঠেছে। একইসঙ্গে নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না, ঠিক কখন এবং পৃথিবীর কোন অংশের দিকে এটি আছড়ে পড়তে যাচ্ছে তাও।

বিবিসির খবরে জানানো হয়েছে, গত ২৯শে এপ্রিল চী’নের ওয়েনচ্যাং স্পেস স্টেশন থেকে লং মার্চ ফাইভবি রকেটটি উৎক্ষেপণ করা হয়। মহাকাশে এই রকেটের ধবং’সাবশেষ এখন পৃথিবীর চারদিকে প্রদক্ষিণ করছে। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এটি ক্রমাগত পৃথিবীর দিকে নেমে আসছে। মধ্যাকর্ষণের কারণে এটি এভাবেই ঘুরতে ঘুরতে এসে পৃথিবীতে আঘাত হানবে।

তবে বায়ুমণ্ডল স্থির না থাকায় হিসেব করে বের করা যাচ্ছে না ঠিক কোন অংশে এটি পড়তে পারে।বৃহস্পতিবার যুক্ত’রাষ্ট্র জানায়, তারা ধ্বং’সাবশেষের গতিবিধি পর্যবেক্ষণ করছে। তবে এখনই এটিকে মি’সাইল ছুঁড়ে ধ্বং’স করা হবে কিনা তার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। মা’র্কিন প্রতিরক্ষা সচিব লয়েড অস্টিন বলেন,

আমরা আশা করছি এটি এমন জায়গায় ধসে পড়বে যেখানে কারো ক্ষতি হবে না। আশা করি সমুদ্র বা এমন জনমানবহীন কোথাও পড়বে এটি। চী’নের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, এ ধরণের কোনো পরিকল্পনা এবং অভিযান পরিচালনার সময় অনেক কিছু মাথায় রাখা জরুরি ছিল।

এদিকে, আর্থ অবজারভেটরি সিঙ্গাপুরের জেসন স্কট হেরিন জানান, মধ্যাকর্ষণ টানের ফলে এই ধ্বং’সাবশেষ নীচের দিকে আরো ঘণ বায়ুমণ্ডলের দিকে নামতে থাকবে। এর ফলে মধ্যাকর্ষণ টান এবং নীচের দিকে নেমে আসার গতিবেগও বাড়বে।

একবার এই প্রক্রিয়া শুরু হলে, বস্তুটি একটি একটি নির্দিষ্ট দিকে নীচের দিকে ধেয়ে আসতে থাকবে। তিনি উল্লেখ করেন, ভূ-পৃষ্ঠ থেকে প্রায় ৬০ কিলোমিটার উচ্চতায় বায়ুমণ্ডল ক্রমেই ঘন হতে থাকায় রকেটের ধ্বং’সাবশেষের বেশিরভাগ আ’গুনে পুড়ে যাবে। যে অংশগুলো পুড়বে না সেগুলোই পৃথিবীতে ভেঙে পড়বে। এটি কোথায় এসে পড়বে সেটা নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না বা সঠিক পূর্বাভাসও দেয়া যাবে না।

এদিকে হার্ভার্ড-স্মিথসোনিয়ান সেন্টার ফর অ্যাস্ট্রো ফিজিক্সের জ্যোতির্বিজ্ঞানী জনাথন ম্যাকডোয়েল বলেন, মা’র্কিন বা ইউরোপীয় রকেটগুলো বিশেষভাবে নকশা করা হয়। ফলে এগুলো কক্ষপথে ছিটকে না পড়ে। আবার একটি রকেটের ধ্বং’সাবশেষ নিয়ন্ত্রিতভাবে পৃথিবীতে ভেঙে পড়তে পারে।

কিন্তু এক্ষেত্রে রকেটটির মধ্যে সেই নিয়ন্ত্রণ সিস্টেম থাকতে হবে। চী’নের রকেটে এটি নেই। থাকলে রকেটের ধ্বং’সাবশেষ সমুদ্রের মাঝখানে এবং জনমানব থেকে দূরে একটি নির্দিষ্ট স্থানে যে ভেঙে পড়বে সেটা নিশ্চিত করা যেতো। অ’স্ট্রেলিয়া, নি’উজিল্যান্ড এবং দক্ষিণ আ’মেরিকা থেকে সবথেকে দূরের দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলটি এসব ধ্বং’সাবশেষ ফেলার ক্ষেত্রে নিরাপদ। কারণ এই জায়গাটিকে মহাসাগরের দুর্গম মেরু বলা হয়।

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button
error: Content is protected !!
Close
Close