একসঙ্গে খুলবে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, পিছিয়ে যাচ্ছে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

একসঙ্গে খুলবে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, পিছিয়ে যাচ্ছে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

করোনা সংক্রমণের কারণে চলমান বিধিনিষেধের সময় ১৬ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এ কারণে আগামী ১৩ জুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার যে সম্ভাবনা ছিল তা আর হচ্ছে না। ফের বাড়ানো হবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি। এতে করে ২০২১ সালের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা গ্রহণের সময়ও পিছিয়ে যাচ্ছে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি) জানিয়েছে, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও দূরশিক্ষণ কার্যক্রম চলবে এবং একসঙ্গে খুলবে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। জানা গেছে, ১৩ জুন থেকে প্রাথমিক, মাধ্যমিক আর উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলব বলে গত মাসে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন শিক্ষামন্ত্রী। আর টিকা দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় খুলবে।

সেভাবেই প্রস্তুতি চলছিল। কিন্তু রোববার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় জানায়, ১৬ জুন পর্যন্ত বাড়ছে চলমান বিধিনিষিধের মেয়াদ। ফলে ১৩ জুন যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে না তা নিশ্চিত হয়ে যায়।শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকেও জানানো হয়েছে, ১৬ জুনের পর পরিস্থিতি বিবেচনা করেই নতুন তারিখ ঘোষণা করা হবে।

এদিকে কম করোনা সংক্রমণ এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার যে আলোচনা চলছিল সেটাও বাস্তবায়ন হচ্ছে না। একসাথেই সব প্রতিষ্ঠান খোলা হবে বলে জানিয়েছে মাউশি। ফলে আরেক দফা পেছাচ্ছে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার সময়।এ বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সৈয়দ গোলাম ফারুক জানান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে পরিস্থিতি বিবেচনায় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী তারিখ ঘোষণা করা হবে।

একেক জায়গায় একেক রকমভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে একমত নন শিক্ষামন্ত্রী। সবাই যেন সমান সুযোগ পান সেভাবেই সিদ্ধান্ত নিতে চান শিক্ষামন্ত্রী। এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা পেছানোর ইঙ্গিত দিয়ে মাউশি মহাপরিচালক বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর যথাক্রমে ৬০ দিন ও ৮৪ দিন বিবেচনায় এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও দূরশিক্ষণ কার্যক্রম চলবে জানিয়ে তিনি জানান, এর আগে স্কুল পর্যায়ে অ্যাসাইনমেন্ট চললেও চলতি সপ্তাহ থেকে শুরু হচ্ছে ২০২২ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট। তাদের প্রতি সপ্তাহে দুটি করে অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে হবে। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরও ১৬ জুন পর্যন্ত বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন দিয়েছে। ফলে বন্ধই থাকছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button
Close
Close