জানেন কি, বাসি খাবার শরীরের জন্য কতটা ক্ষতিকর, হতে পারে লিভারের বড় সমস্যা

জানেন কি, বাসি খাবার শরীরের জন্য কতটা ক্ষতিকর, হতে পারে লিভারের বড় সমস্যা

খাবার খেলেই যে শরীর ভাল থাকে সেই ধারণা এখন অতীত। আপনি কেমন খাবার খাচ্ছেন তার উপরও নির্ভর করে শরীরের স্বাস্থ্য। সঠিক খাওয়া-দাওয়া করলে অনেক রোগই সহজে যেমন এড়ানো যায়। তেমনই আবার বেশি রান্না করে ফ্রিজে রেখে দেওয়া খাবার খেলেই শরীর খারাপ হতে পারে নিমেষেই।

সময় বাঁচানোর জন্য একসঙ্গে বেশি রান্না করে রেখে সেই খাবার গরম করে খাওয়ার প্রবণতা অনেক বেশি। কিন্তু এই বাসি খাবার শরীরের জন্য কতটা ক্ষতিকর, জানলে অবাক হবেন।ডিম সেদ্ধ করে রেখে দিয়ে পরে তা অনেকেই গরম করে খান। ডিমের মধ্যেও অনেক বেশি পরিমাণে প্রোটিন এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্টস থাকে।

একাবার রান্নার পরে তা গরম করলে সেখান থেকে টক্সিন তৈরি হয়, যা থেকে বদহজম হতে পারে।সময় বাঁচানোর জন্য বেশিরভাগ সময়েই অনেকে মুরগির মাংস রান্না করে রেখে দেন। কিন্তু এটা জানেন কি চিকেন রান্না করে পরে বাসি খাওয়া একদমই উচিত নয়। কারণ মুরগির মাংসে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে।

রান্নার পরে বারবার তা গরম করলে প্রোটিনের কম্পোজিশন বদলে যায়, সেখান থেকে বদহজমেরও সমস্যা হতে পারে।একবার চা বানানোর পর তা ঠান্ডা হয়ে গেলে তা আবার গরম করা উচিত নয়। কারণ চায়ের মধ্যে ট্যানিক অ্যাসিড থাকে তাই তৈরি করা চা বারবার গরম করে খেলে লিভারের বড় ক্ষতি হতে পারে।

অনেকেই আছেন ভাত একেবারে বেশি করে রান্না করে ফ্রিজে রেখে দেন। এবং সেই ভাত মাইক্রোওয়েভে গরম করে বারবার খান। ভাত করার সময় তাতে বেসিলস সিরিয়াস ব্যাকটেরিয়া তৈরি হয়। এবং সেই ভাত বারবার গরম করলে ব্যাকটেরিয়া সংখ্যায় দ্বিগুণ হয়ে যায়। যা থেকে ডায়ারিয়া পর্যন্ত হতে পারে।

আলু সেদ্ধ করে অনেকেই রেখে দেন। কিন্তু এটা জানেন কি, সেদ্ধ আলু রান্না করার পরে ঠাণ্ডা হলে তাতে বটুলিজম নামে একটি ধরনের ব্যাকটেরিয়া তৈরি হয়। এবং পরে গরম করলে এই ব্যাকটেরিয়ার সংখ্যা বেড়ে যায়। সেখান থেকে পেটের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

সময় বাঁচানোর জন্য বেশিরভাগ সময়েই অনেকে মুরগির মাংস রান্না করে রেখে দেন। কিন্তু এটা জানেন কি চিকেন রান্না করে পরে বাসি খাওয়া একদমই উচিত নয়। কারণ মুরগির মাংসে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে। রান্নার পরে বারবার তা গরম করলে প্রোটিনের কম্পোজিশন বদলে যায়, সেখান থেকে বদহজমেরও সমস্যা হতে পারে।

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button
Close
Close