এক্ষুনি জেনে নিন কাঁঠালের বীজেই নানা রোগের সুস্থ্যতা

এক্ষুনি জেনে নিন কাঁঠালের বীজেই নানা রোগের সুস্থ্যতা

এখন কাঁঠালের মৌসুম। তাই বাজারে কাঁঠাল রয়েছে পর্যাপ্ত এবং পাওয়া যাচ্ছে খুব সহজলভ্যে। জাতীয় ফল কাঁঠাল সবারই কমবেশি প্রিয়। আমরা সবাই জানি কাঁঠালে রয়েছে নানা শারীরিক উপকারিতা। কিন্তু পাশাপাশি এর বীজেও আছে নানা উপকারিতা। নানা রোগ থেকে মুক্তি দেবে এই বীজ। এতে আছে প্রোটিন,

ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, জিংক, আয়রন ফসফরাস ও ফাইবার। কাঁঠালের বীজ খেলে যেসব রোগের সমাধান মিলবে-কাঁঠালের বীজে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন এ রয়েছে। যা চোখের জন্য খুবই উপকারী। যারা চোখের নানা সমস্যায় ভুগেন তারা চোখের যত্নে কাঁঠাল নিয়মিত খেতে পারেন। এটি নাইট ব্লাইন্ডনেস কাটাতেও সাহায্য করে।কাঁঠাল বীজ কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে বিপাকক্রিয়া বাড়ায়। এতে প্রচুর পরিমানে ফাইবার রয়েছে। এটি রোদে শুকিয়ে গুঁড়ো করে নিন। এই গুরো পাউডার বদহজমে সহজ হোমমেড রেমেডি হতে পারে।

দীর্ঘদিন থেকে বিভিন্ন ধরনের যৌনব্যাধিতে কাঁঠালের বীজের ব্যবহার হয়ে আসছে। এশিয়ার অনেক দেশে প্রচলিত চিকিৎসার একটি অন্যতম উপকরণ এটি। কাঁঠালে থাকা আয়রনও এ কাজে সহায়ক।কাঁঠালের বীজের গুঁড়ো দুধের সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে ফেসপ্যাক দুই সপ্তাহ পরপর মুখে লাগালে বয়সের ছাপ দূর করবে

এবং ত্বকের সতেজতা বাড়াবে।চুলের আগা ফেটে যাওয়া রোধ করে কাঁঠালের বীজে থাকা ভিটামিন। এতে থাকা প্রোটিন ও আয়রন চুলের জন্য টনিকের কাজ করে। কাঁঠালের বীজে থাকা আয়রন রক্তে হিমোগ্লোবিন বাড়ায়। যা অ্যানিমিয়া তথা রক্তাল্পতা সংক্রান্ত সমস্যা মোকাবিলা করে। সেই সাথে কাঁঠালের বীজ আপনার

ত্বককে করে তুলবে সজীব ও তরতাজা।প্রতিদিনের খাবারে কাঁঠালের বীজ রাখলে আপনার শরীরের আয়রনের মাত্রা বৃদ্ধি পাবে।এই বীজে প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকে। কাঁঠালের বীজ হিমোগ্লোবিনের একটি উপাদান। আয়রন সুস্থ রাখবে আপনার মস্তিষ্ক ও হার্টকে।কাঁঠালের বীজে আছে প্রোটিন ও মাইক্রোনিউট্রিয়েন্টস।যা মস্তিষ্কের

ক্যামিকেলের ভারসাম্য বজায় রেখে মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে রাখে। বর্ষাকালে নানা রোগের সংক্রমণ বাড়ে। এই বীজ শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। অনেকেরই হয়তো জানা নেই, কাঁঠাল বীজ বিভিন্ন সংক্রমণ রোধে সহায়তা করে। নিয়মিত কাঁঠালের বীজ খেলে বর্ষা মৌসুমে বিভিন্ন সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাবেন।সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া health tips

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button
Close
Close