বিসিএস ক্যাডার এবং নন-ক্যাডারের মধ্যে মৌলিক পার্থক্য কী?

বিসিএস ক্যাডার এবং নন-ক্যাডারের মধ্যে মৌলিক পার্থক্য কী?

চলুন জেনে নিই , ক্যাডার এবং নন ক্যাডার কিভাবে নিয়োগ করা হয় !মনে করুন, ৪৩তম বিসিএস-এ ২৬টি ক্যাডার ক্যাটাগরি তে মিলিয়ে মোট পোষ্ট ছিলো ২৫০০ । কিন্তু প্রিলিমিনারি, রিটেন, ভাইবা তে উত্তীর্ণ প্রার্থী-র সং্খ্যা ৩৫০০ ।

কিন্তু নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী পিএসসি (পাবলিক সার্ভিস কমিশন ) এর চাহিদা ২৫০০ জন ! কিন্তু চাহিদার চেয়েও অধিক প্রার্থী তাদের হাতে আছে, তাদের কি হবে ? হ্যাঁ, তারা সবাই নন-ক্যাডার ।২৫০০ ক্যাডার কিভাবে নিয়োগ করা হয় ? সহজ উত্তর – মেধা তালিকা অনুযায়ী ২৫০০ ক্যাডার নির্বাচিত করা হয় এবং তাদের নাম অন্তর্ভুক্ত করে গেজেট প্রকাশ করা হয় ।

মৌলিক যে পার্থক্য তা হলোঃ বিসিএস ক্যাডার এর সবগুলো চাকরি-ই প্রথম শ্রেণি-র , অন্যদিকে নন-ক্যাডার সব প্রথম শ্রেণি-র চাকরি না ।ক্যাডার হলে সরাসরি ও নিশ্চিত নিয়োগ হয়ে থাকে, তবে নন-ক্যাডার হলে সরাসরি নিয়োগ তো হয়-ই না (পিএসসি বিভিন্ন চাকরির জন্য সুপারিশ করবে) ,

এমনকি চাকরি না হওয়ারও অনেক ইতিহাস আছে ।ক্যাডারভুক্ত-রা প্রমোশন পেয়ে নীতিনির্ধারক পদে যেতে পারেন কিন্তু নন-ক্যাডারগণ যেতে পারেন না । প্রায় সব ক্যাডার ই প্রমোশন পেয়ে গ্রেড -৩ পর্যন্ত যেতে পারেন, অন্যদিকে নন-ক্যাডার এর উপরের পোষ্ট ব্লক পোষ্ট ।

সত্যায়ন ক্ষমতা । রাষ্ট্রীয় বিধিনিষেধ অনুযায়ী মহামান্য রাষ্ট্রপতি-ই কেবল কোন কিছু সত্যায়িত করার ক্ষমতা রাখেন, কিন্তু উনার ব্যস্ততা এবং অপারগতায় এটা সম্ভব নয় বলে উনার অনুমোদনক্রমে নিয়োগপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণ (গ্যাজেটেড )

সত্যায়িত করতে পারবেন । তবে সার্কুলার এ গেজেট কথাটি উল্লেখ না থাকলে সকল প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তা-ই সত্যায়িত করতে পারবেন ।পড়ার জন্য ধন্যবাদ । অনুগ্রহ করে শেয়ার করে এই পোস্টটি তাকে পাঠান যাকে আপনি ক্যাডার হিসেবে দেখতে চান। তথ্যসূত্রঃ ইন্টারনেট

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Back to top button
Close
Close