শীতের রুক্ষ পা ফাটার সমস্যা সমাধানের এই ঘরোয়া উপায় জেনে নিন

এ সমস্যা কেবল মেয়েদেরই নয়, এই সমস্যা ছেলেদের ক্ষেত্রেও দেখা যায়। শুষ্ক আবহাওয়া এবং পায়ের পাতার যে অংশে চাপ বেশী পড়ে সেই অংশ ফেটে যায়। শুধু পরিষ্কার করলেই তো হল না, পরিচর্যার জন্য দরকার সঠিক উপায় ত্বককে নরম মসৃন করা। ত্বক নরম করতে হলে আমন্ড অয়েল বা তিল তেল ভালো। শীতের রুক্ষ আবহাওয়ায় ময়েশ্চরারের অভাবে পায়ের ত্বক শুষ্ক হয়ে যায় ফলে পা ফাটার সমস্যা দেখা যায়।

সুন্দর ট্রেন্ডি সাজও মাটি হয়ে যায় যদি দেখা যায় পায়ের ফাটা গোড়ালি। সবসময় পার্লারে গিয়ে পেডিকিওর করানো সম্ভব হয় না। এই সময় ডিজিটাল ডেস্ক: শীতের রুক্ষ আবহাওয়ায় ময়েশ্চরারের অভাবে পায়ের ত্বক শুষ্ক হয়ে যায় ফলে পা ফাটার সমস্যা দেখা যায়। সুন্দর ট্রেন্ডি সাজও মাটি হয়ে যায় যদি দেখা যায় পায়ের ফাটা গোড়ালি। সবসময় পার্লারে গিয়ে পেডিকিওর করানো সম্ভব হয় না।

এ সমস্যা কেবল মেয়েদেরই নয়, এই সমস্যা ছেলেদের ক্ষেত্রেও দেখা যায়। শুষ্ক আবহাওয়া এবং পায়ের পাতার যে অংশে চাপ বেশী পড়ে সেই অংশ ফেটে যায়। অনেক সময় পা ফাটলে পা ব্যথা ও জ্বালাপোড়া করে, হাঁটতে সমস্যা হয়। ঘরোয়া উপায় মিলবে পা ফাটার সমস্যা থেকে মুক্তি।

উষ্ণ গরম জলে এক বা দুই টেবিল চামচ ভিনেগার দিয়ে পা ভিজিয়ে রাখবেন। একটু শ্যাম্পু দিলে আরো ভালো। পাঁচ মিনিট ভিজিয়ে রেখে পা ঘষার পাথর দিয়ে ঘষবেন। এরপর ক্রিম ব্যবহার করতে হবে। স্নানের সময় ভালো করে সাবান, পিউমিস স্টোন বা ধুধুল দিয়ে পা পরিষ্কার করুন।
বাইরে থেকে বাড়িতে আসার পরই হালকা গরম জলে অল্প নারকেল তেল, সামান্য নুন দিয়ে পা ডুবিয়ে রাখুন। আলতো করে পিউমিস স্টোন দিয়ে ভালো করে পা পরিষ্কার করুন। এর পর শুকনো তোয়ালে দিয়ে পা মুছে নিন।

পায়ের ফাটা অংশে জমা ময়লা পরিষ্কার করতে হলে দু’-তিন চামচ চালেরগুড়ি, মধু ও ভিনিগার মিশিয়ে নিন। গোড়ালির ফাটা অংশের উপর মিশ্রণটি লাগিয়ে দিন। কিছু ক্ষণ রাখার পর ভিজে হাত দিয়ে মিশ্রণটি ঘষে ঘষে তুলে ফেলুন। ময়লা উঠে যাবে। পায়ের ফাটা অংশে মেহেন্দি পাতা, পালং শাক বাটা ও গ্লিসারিন মিশিয়ে লাগান। মিনিট দশেক রাখার পর ধুয়ে ফেলুন।

কিন্তু এ তো গেল পা পরিষ্কার করার কথা। শুধু পরিষ্কার করলেই তো হল না, পরিচর্যার জন্য দরকার সঠিক উপায় ত্বককে নরম মসৃন করা। ত্বক নরম করতে হলে আমন্ড অয়েল বা তিল তেল ভালো। নিদেংপক্ষে বাড়িতে নারকেল তেল তো থাকেই। সেটাই পায়েপ পাতায় ও গোড়ালিতে ভাল করে ম্যাসাজ করে নিতে পারেন। এই ফুট স্পা শুধু পায়ের পেশি টোনডই করে না, রিল্যাক্স করতেও সাহায্য করে।

ক্লান্তি দূর করে এবং রক্ত সঞ্চালনেও সাহায্য করে। ব্যস আর বসে থাকা কেন, এ বার বাড়িতেই মিলবে পার্লারের মতো পেডিকিওরের সুফল। পা ফাটা রোধের সব থেকে ভালো উপায় হচ্ছে প্রাকৃতিক স্ক্রাবের ব্যবহার। ঘরোয়া ভাবে তৈরি এই স্ক্রাবটি প্রতিদিন ব্যবহার করে খুব দ্রুত পা ফাটা রোধ করতে পারবেন।

এ সম্পর্কিত আরও পোস্ট

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।

Back to top button
Close
Close