Home / Cooking Tips and Recipes / খাসির মাংশের মজাদার ১০ টি রেসিপি একসাথে

খাসির মাংশের মজাদার ১০ টি রেসিপি একসাথে

১. আলু দিয়ে মাটন কারি

আলু দিয়ে খাসির মাংস বা ঘরোয়া পদ্ধতিতে মাটন কারি রান্না করার রেসিপি।

উপকরণ (Ingredients):খাসির মাংস – 1 কিলোগ্রাম টক দই – 3 টেবিল চামচ আদা বাঁটা – 3-4 টেবিল চামচ বড় সাইজের পেঁয়াজ – 2-3 টি (কুচানো)
টমেটো – 2 টি (চার টুকরো করে কাটা) কাঁচা লঙ্কা 2-3 টি সরষের তেল – 200 গ্রাম এলাচ – 2-3 টি দারচিনি – 1 ইঞ্চি লবঙ্গ – 3-5 টি তেজপাতা – 2-3 টি
শুকনো লঙ্কা – 1-2 টি জিরে গুঁড়ো – 1 টেবিল চামচ ধনে গুঁড়ো – 1/2 টেবিল চামচ গোলমরিচ গুঁড়ো – 1 চা চামচ কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো – 1/2 টেবিল চামচ

গরম মশলা গুঁড়ো – 1 টেবিল চামচ গাওয়া ঘি – 1 টেবিল চামচ চিনি – 1 চা চামচ নুন – স্বাদ মতো প্রণালী (Instructions): খাসির মাংস পরিষ্কার করে ধুয়ে ওতে টক দই, অর্ধেকটা আদা বাঁটা, অর্ধেক ধনে, জিরে, কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো, 2 টেবিল চামচ সরষের তেল, নুন, হলুদ দিয়ে খুব ভাল করে মেখে 20-30 মিনিট ম্যারিনেট করতে হবে।একটা পাত্রে অবশিষ্ট জিরে গুঁড়ো, ধনে গুঁড়ো, গোলমরিচ গুঁড়ো আর কাশ্মীরি লঙ্কা গুঁড়ো জল দিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে রেখে দিতে হবে। আলু খোসা ছাড়িয়ে সামান্য নুন হলুদ মাখিয়ে নিতে হবে। একটি পরিষ্কার কড়াই গ্যাসে বসিয়ে তাতে বাকি সরষের তেল দিতে হবে। তেল বেশ গরম হলে আলু গুলো হালকা করে ভেজে তুলে রাখতে হবে।এবার আঁচ কম রেখে ঐ তেলে চিনি, গোটা গরম মশলা (এলাচ, লবঙ্গ, দারচিনি), তেজপাতা, শুকনো লঙ্কা একে একে দিতে হবে। হালকা গন্ধ বেরোলে

কুচানো পেঁয়াজ গুলো দিয়ে 1-2 মিনিট মতো নাড়াচাড়া করতে হবে। খেয়াল রাখতে হবে পেঁয়াজ যাতে পুড়ে না যায়।পেঁয়াজ 1-2 মিনিট ভাজা হলেই ম্যারিনেট করা মাংস দিতে হবে। এবার আঁচটা বাড়িয়ে দিয়ে খুন্তি দিয়ে ভাল করে নাড়াচাড়া করতে হবে। এই অবস্থায় বাকি আদা বাঁটাটা খুন্তি দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে দিতে হবে।3-4 মিনিট পরে বানিয়ে রাখা মশলার পেস্ট টা দিয়ে ভালো করে নাড়াচাড়া করতে হবে। এই সময় প্রয়োজনে আবার একটু নুন দেওয়া যেতে পারে।এইভাবে মাংসটা উচ্চ আঁচে ভালো করে কষতে হবে। 5 মিনিট কষার পর মাঝারি আঁচে আরও 10-15 মিনিট কষতে হবে। জল শুকিয়ে গিয়ে যখন তেল ছাড়তে শুরু করবে তখন টমেটোর টুকরো গুলো দিয়ে আবার কষতে থাকতে হবে। শেষের দিকে আঁচ কম করে দিতে হবে যাতে মাংস কড়াইতে ধরে না যায়।কষা যখন প্রায় শেষের দিকে তখন ভেজে রাখা আলুগুলো দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে আরো কিছুক্ষণ কষে নিতে হবে।মাংস থেকে তেল আলাদা হয়ে এলে বুঝতে হবে কষা হয়ে গেছে।এবার 2 1/2 – 3 কাপ গরম জল দিয়ে নেড়েচেড়ে নিতে হবে ভাল করে যাতে কড়াইতে মশলা লেগে না থাকে।এবার প্রেসার কুকার এ মাংস সেদ্ধ করতে দিতে হবে । প্রথমে উচ্চ তাপে সিটি ধরে এলে আঁচ কমিয়ে 2-3 টে সিটি দিয়ে গ্যাস বন্ধ করে দিতে হবে । স্টীম সম্পূর্ণ বেরিয়ে গেলে তবে কুকার খুলতে হবে।ঢাকনা খুলে গরম মসলা আর 1 টেবিল চামচ ঘি ছড়িয়ে 1-2 মিনিট মতো ফুটিয়ে নিলেই রেডি হয়ে গেলো খাসির মাংসের ঝোল।গরম সাদা ভাত বা পোলাও এর সাথে পরিবেশন করতে হবে।২. ফ্রাইড মাটন চপস উপকরণ: খাসির গোশত, ৪ থেকে ৫টি এলাচ, ২ থেকে ৩ টুকরো দারুচিনি, ৪টি ছোট এলাচ, ৫ থেকে ৭টি লবঙ্গ, ১টি স্টার মসলা, লবণ স্বাদ মতো, আধা চা চামচ আদা বাটা, আধা চা চামচ রসুন বাটা, ১ চা চামচ খোসাসহ পেঁপে বাটা, আধা চা চামচ হলুদ গুঁড়ো, আধা কাপ টক দই, ১চা চামচ গোল মরিচের গুড়ো, আধা চা চামচ জিরা গুঁড়ো, আধা চা চামচ ধনে গুঁড়ো, কোয়ার্টার কাপ গরম মসলা গুঁড়ো, আধা কাপ পরিমাণ পেঁয়াজ বাটা, ২টি ডিম ( ফেটে নিতে হবে), ১ টেবিল চামচ পরিমাণ কনফ্লয়ার, আধা চা চামচ গোল মরিচের গুঁড়ো, লিকুইড দুধ দুই কাপ পরিমাণ ও তেল পরিমাণ মতো।

প্রণালিঃ

প্রথমে সিনার গোশতগুলো ১ সেমি পুরু করে কেটে নিতে হবে। এগুলো ভালো করে ধুয়ে পানি শুকিয়ে নিতে হবে। গোশতগুলো একটি হাড়িতে নিয়ে এর মধ্যে দুইটি বড় এলাচ, এক টুকরো দারুচিনি, চারটি ছোট এলাচ, চার থেকে পাঁচটি লবঙ্গ, একটি স্টার মসলা, স্বাদ মতো লবণ, আধা চা চামচ আদা বাটা, আধা চা চামচের মতো রসুন বাটা, এক চা চামচ খোসাসহ পেস্ট করা পেঁপে বাটা, আধা চা চামচ হলুদ আর দুই কাপ পানি দিয়ে ঢেকে মিডিয়াম আঁচে রান্না করতে হবে। এভাবে ঢেকে প্রায় ২০ থেকে ২৫ মিনিট রাখতে হবে।এরপর গোশতগুলো উল্টে পালটে দিয়ে জ্বাল দিতে হবে আর পানি শুকিয়ে ফেলতে হবে।একটি বাটিতে আধা কাপ পরিমাণ টকদই, গোল মরিচের গুঁড়ো এক চা চামচ, আধা চা চামচ জিরা গুঁড়ো, আধ চা চামচ পরিমাণ ধনে গুঁড়ো, এক চিমটি পরিমাণ জয়ফল গুঁড়ো, আধা চা চামচ লাল মরিচ ভাঙা, স্বাদ অনুযায়ী লবণ, কোয়ার্টার চা চামচ গরম মসলা গুঁড়ো, আধা কাপ পরিমাণ পেঁয়াজ বাটা এই সবগুলো উপকরণ একসঙ্গে খুব ভালো ভাবে মিশিয়ে নিতে হবে। এই পেস্টের মধ্যে চপের পিসগুলো দিয়ে ভালো করে মিক্স করে নিতে হবে। এভাবে এক ঘণ্টা ঢেকে রেখে দিতে হবে।

এরপর একটি বাটিতে দুইটি ডিম, এক টেবিল চামচ কনফ্লায়ার, আধা চা চামচের মতো গোল মরিচের গুঁড়ো, কোয়ার্টার চা চামচ লবণ, আর লিকুইড দুধ দুই টেবিল চামচ একসঙ্গে নিয়ে ভালো করে ফেটে নিতে হবে। এবার এই মিশ্রণের মধ্যে মেরিনেট করা চপসগুলো ঢুবিয়ে গরম তেলে ভেজে নিতে হবে। এগুলো তেলে দেওয়ার আগে তেল খুব ভালো করে গরম করে নিতে হবে। চুলার আঁচ মিডিয়ামের মাঝামাঝি রাখতে হবে। চপটা যেন প্যানের তেলের মধ্যে অর্ধেক পরিমাণ ঢুবে থাকে। ৩ থেকে ৪ মিনিট ভেজে নিলেই হবে। সবগুলো চপস ভেজে নিলে তৈরি হয়ে যাবে মজাদার ফ্রাইড মাটন চপস।

৩. মাটন কোরমা

উপকরণ : খাসির মাংস দুই কেজি, পেঁয়াজবাটা আধা কাপ, রসুনবাটা দুই চা-চামচ, আদাবাটা এক টেবিল-চামচ, দারুচিনি বড় চার টুকরা, তেজপাতা দুটি, লবণ দুই চা-চামচ, ঘি আধা কাপ, কাঁচা মরিচ আটটি, কেওড়া দুই টেবিল-চামচ, তরল দুধ দুই টেবিল-চামচ, এলাচি চারটি, টক দই আধা কাপ, চিনি চার চা-চামচ, দেশি পেঁয়াজকুচি আধ কাপ, লেবুর রস এক টেবিল-চামচ, জাফরান আধা চা-চামচ, (দুই টেবিল-চামচ তরল দুধে ভিজিয়ে ঢেকে রাখুন)।

প্রণালি : মাংস টুকরো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। সব বাটা মসলা, গরম মসলা, টক দই, সিকি কাপ ঘি ও লবণ দিয়ে মেখে হাত ধোয়া পানি দিয়ে ঢেকে মাঝারি আঁচে চুলায় বসিয়ে দিন। মাংস সেদ্ধ না হলে আরও পানি দিন। পানি অর্ধেক টেনে গেলে কেওড়া ও কাঁচা মরিচ দিয়ে আবার হালকা নেড়ে ঢেকে দিন। ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর পাশের চুলায় বাকি ঘি গরম করে পেঁয়াজকুচি সোনালি রং করে ভেজে মাংসের হাঁড়িতে দিয়ে বাগার দিন। তারপর চিনি দিয়ে নেড়ে ঢেকে দিন। পাঁচ মিনিট পর ঢাকনা খুলে দুধে ভেজানো জাফরান ওপর থেকে ছিটিয়ে দিয়ে আরও পাঁচ মিনিট ঢেকে রাখুন। তারপর ঢাকনা খুলে লেবুর রস দিয়ে হালকা নেড়ে আঁচ একেবারে কমিয়ে তাওয়ার ওপর ঢেকে প্রায় ২০ মিনিট থেকে আধা ঘণ্টার মতো দমে রাখুন। যখন কোরমা মাখা মাখা হয়ে বাদামি রং হবে এবং মসলা থেকে তেল ছাড়া শুরু করবে, তখন নামিয়ে পরিবেশন করুন।

৪. আচার-ই-মাংস

উপকরণ: খাসির মাংস দুই কাপ, আদা বাটা এক চা চামচ. রসুন বাটা এক চা চামচ, মরিচ গুঁড়ো আধা চা চামচ, ধনে গুঁড়ো এক চা চামচ, হলুদ গুঁড়ো এক চিমটি, তেজপাতা দুইটা, পাঁচ ফোঁড়ন এক চা চামচ, সরিষা বাটা এক চা চামচ, ভিনেগার এক চা চামচ, গোটা রসুন আধা কাপ, গরম মসলা গুঁড়ো আধা চা চামচ, শুকনা মরিচ পাঁচ-ছয়টা, সরিষার তেল দুই কাপ, লবণ স্বাদমত।

প্রণালি : একটি প্যানে মাংস নিয়ে তাতে হলুদ গুঁড়ো, মরিচ গুঁড়ো, ধনে গুঁড়ো, আদা-রসুন বাটা ও লবণ দিয়ে ভালো করে মাখিয়ে নিন। এবার পরিমাণমতো পানি দিয়ে মাংস সিদ্ধ করে নিতে হবে। এখন অন্য একটি প্যানে দুই কাপ সরিষার তেল গরম করে এতে তেজপাতা শুকনা মরিচ ও পাঁচ ফোঁড়ন দিয়ে নাড়তে থাকুন। এবার সরিষা বাটা, ভিনেগার ও গোটা রসুন দিয়ে নাড়তে থাকুন দুই মিনিটের মতো। এরপর, এর মধ্যে মাংস দিয়ে দিন এবং নাড়তে থাকুন। এখন এতে গরম মসলা গুঁড়ো দিন। এভাবে নাড়তে নাড়তে যখন মাংস ভাজা ভাজা হবে ও রসুনগুলো সিদ্ধ হবে তখন নামিয়ে নিন। এবার আচার ঠান্ডা করে যে কোন কাচের পাত্রে রেখে দিতে পারেন তিন চার মাসের জন্য।

৫. গোশত-ভর্তা

উপকরণ: হাড় চর্বি ছাড়া খাসির গোশত, ৪ থেকে ৫টা শুকনো মরিচ (বোটাসহ শুকনো মরিচ ভাজতে হবে), ২ থেকে ৩টি কাঁচা মরিচ বোটা ছাড়িয়ে, দুইটি পেঁয়াজ কুচি (পাতলা পাতলা পেঁয়াজ কুচি), লবণ পরিমাণ মতো, রসুন কুচি (পাতলা করে কেটে নিতে হবে), ১ / ৪ ভাগ গরম মসলা গুঁড়ো, হাফ চা চামচ ভাজা জিরার (জিরা টেলে নিয়ে গুঁড়ো করতে হবে) গুঁড়ো, সরিষার তেল পরিমাণ মতো।

প্রণালি: গোশত রান্না করার পরে হাড় ও চর্বি ছাড়া যে গোশতগুলো থাকে সেগুলো নিয়ে নিতে হবে। ৮ থেকে ১০ পিস গোশত কুচি কুচি করে কেটে নিতে হবে বা চাকু দিয়ে নরম করে নিতে হবে। এবার একটি প্যানে তেল নিয়ে ৪ থেকে ৫টি শুকনো মরিচ ( শুকনো মরিচের বোটা সঙ্গে রেখে ভাজতে হবে, বোটা ফেলে দিলে মরিচে তেল ঢুকবে তবে ভাজার পর আর মচমচে থাকবে না), আর ২ থেকে ৩টি কাঁচা মরিচ (কাঁচা মরিচের পেছন থেকে কেটে ফেলে দিতে হবে, নাহলে তেল ছিটবে) দিয়ে দিবেন।

মরিচ ভাজা হলে তুলে নিয়ে দুইটি পেঁয়াজ কেটে নিতে হবে আর মরিচগুলো লবণ দিয়ে ভেঙ্গে নিতে হবে। মরিচে লবণের পরিমাণ কম দিতে হবে কারণ রান্না করা গোশত লবণ দেওয়া থাকে। পেঁয়াজও হাত দিয়ে ভালো করে চটকে নিতে হবে। পাতলা পাতলা করে রসুন কুচি করে কেটে নিতে হবে আর আদাও পাতলা করে কেটে নিতে হবে। এক চামচের চার ভাগের এক ভাগ গরম মসলা, হাফ চা চামচ টেলে নেওয়া জিরার গুঁড়ো দিয়ে ভালো করে মেখে নিতে হবে। এবার কুচি করা গোশতগুলো এর মধ্যে দিয়ে দিতে হবে। এর সঙ্গে আরো দিতে হবে সরিষার তেল। তারপর গোশতর সঙ্গে এগুলো খুব ভালো করে মিশিয়ে নিতে হবে। এভাবে তৈরি হয়ে যাবে গরুর গোশতর মজাদার ভর্তা। এটি খেতে খুবই সুস্বাদু ও মজাদার। এই ভর্তা দিয়ে একবারে অনেক গরম ভাত খাওয়া যায়।৬. শাহী মাটন কোরমা রান্না করার প্রনালীউপকরণ – খাসির মাংস- ১ কেজি, পেঁয়াজ বাটা- ১/৪ কাপ, আদা বাটা- ১ টেবিল চামচ, দারুচিনি- ৩ টুকরা, (২ সে.মি.), এলাচ- ৪টি, তেজপাতা- ২টি, রসুন বাটা- ২ চা চামচ, কেওড়া জল- ২ টেবিল চামচ, জাফরান- আধা চা চামচ, ঘন দুধ দিয়ে একত্রে কাঠবাদাম, কাজুবাদাম ও পোস্তদানা বাটা- ১ টেবিল চামচ, লবণ- ২ চা চামচ, চিনি- ২ চা চামচ, তেল- ১/৪ কাপ, ঘি- ১/৪ কাপ, পেঁয়াজ- ৬টি, মিহি স্লাইস, কাঁচামরিচ- ৮টি, টক দই- আধা কাপ,লেবুর রস- আধা টেবিল চামচ, বাদাম ও পেস্তা কুচি- ২ টেবিল চামচ।প্রণালি – চর্বি ফেলে মাংস পরিষ্কার করে টুকরা করে ধুয়ে ১/২ চা চামচ লবণ মেখে ৩০ মিনিট রেখে দিন। তারপর ভালো করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। কেওড়াজলে জাফরান ভিজিয়ে নিন। হাঁড়িতে মাংস নিয়ে ঘি, দারুচিনি, এলাচ, তেজপাতা, চিনি, লেবুর রস, কেওড়াজল, জাফরান ও কাঁচামরিচ বাদে অন্যান্য সমস্ত উপকরণ একত্রে মিশিয়ে মেখে ২০ থেকে ৩০ মিনিট রেখে দিন। ৩০ মিনিট পর মেখে রাখা মাংসের হাঁড়ি মাঝারি আঁচে ঢেকে রান্না করুন।মাংস সিদ্ধ না হলে ১ থেকে ২ কাপের মতো ফুটানো গরম পানি ও কাঁচামরিচ দিয়ে নেড়ে ঢেকে দিন। ১০/১৫ মিনিট পর ঢাকনা খুলে চিনি ও কেওড়াজলে মিশানো জাফরান দিয়ে নেড়ে অল্প আঁচে ঢেকে কিছুক্ষণ রান্না করুন। পাশের চুলায় প্যানে ঘি গরম করে তেজপাতা ও গোটা গরম মসলার ফোড়ন দিয়ে পেঁয়াজ স্লাইস সোনালি করে ভেজে মাংস বাগার দিন। তারপর নেড়ে আঁচ কমিয়ে ঢেকে তাওয়ার উপরে ১০/১৫ মিনিট দমে রেখে লেবুর রস দিয়ে নেড়ে ১০ মিনিট পর চুলা বন্ধ করে দিন। সার্ভিং ডিশে মনের মতো করে সাজিয়ে পোলাও বা পরোটার সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন।৭. মাটন খিঁচুড়িউপকরণমাংসের জন্যখাসির মাংস – ১ কেজিআদা বাটা – ২ টেবিল চামচরসুন বাটা – ১ টেবিল চামচটক দই – ৩ টেবিল চামচজিরা গুঁড়া – ১ চা চামচগরম মসলা গুঁড়া – ১ চা চামচলাল মরিচ গুঁড়া – ১ চা চামচহলুদ গুঁড়া – ১/২ চা চামচপেঁয়াজকুচি – ১/২ কাপতেল – আনুমানিক ১/২ কাপলবন – ১ চা চামচ বা স্বাদমতখিঁচুড়ির জন্যঃবাসমতি বা পোলাও এর চাল – ২ কাপমসুর ডাল – ১/২ কাপমুগ ডাল – ১/২ কাপ (হালকা ভেজে নিতে

পারেন)পেঁয়াজকুচি- ১/৪ কাপআস্ত কাঁচামরিচ – ৩ টাহলুদ গুঁড়া – ১ চা চামচআদা বাটা – ১ টেবিল চামচরসুন বাটা – ১ টেবিল চামচএলাচ – ৬ টাদারচিনি – ৪ টাতেজপাতা – ৪ টাতেল – ১/৪ কাপলবন – ২ চা চামচ বা স্বাদমতগরম পানি – আনুমানিক ৫ কাপপ্রণালিমাংসের জন্যঃপেঁয়াজকুচি আর তেল ছাড়া মাংসের বাকি সব উপকরন মাংসের সাথে মাখিয়ে ২ ঘন্টা মেরিনেট করে রাখুন।পাত্রে তেল গরম করে পেঁয়াজ বাদামি করে ভাজুন। ভাজা হলে তাতে মাখিয়ে রাখা মাংস দিয়ে কষিয়ে নিন।পাত্রে ঢাকনা দিয়ে কম আঁচে দুই ঘন্টা বা মাংস সিদ্ধ হওয়া পর্যন্ত রান্না করুন। প্রয়োজন হলে অল্প গরম পানি দিন।খিঁচুড়ির জন্যঃচাল ও ডাল একসাথে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখুন।পাত্রে তেল গরম করে তাতে আস্ত গরম মসলার ফোঁড়ন দিয়ে পেঁয়াজকুচি দিয়ে নাড়তে থাকুন।পেঁয়াজকুচি নরম হলে তাতে আদা বাটা ও রসুন বাটা দিয়ে অল্প ভাজুন। তারপর চাল ও ডাল দিয়ে আবার কিছুক্ষন ভাজুন। এসময় লবন, হলুদ গুঁড়া ও কাঁচামরিচ দিয়ে দিন।২-৩ মিনিট ভাজার পরে গরম পানি দিয়ে দিন। পানি সিদ্ধ হয়ে আসলে ঢাকনা দিয়ে কম আঁচে ১৫- ১৬ মিনিট রান্না করুন। (খিঁচুড়ি ৮০% পর্যন্ত রান্না হবে)মিশানোঃএকটি বড় পাত্র বা ওভেন এ দেয়া যাবে এমন ট্রে নিয়ে নিচে অল্প ঘি লাগিয়ে নিন। এবার একস্তর খিঁচুড়ি দিয়ে তার উপর মাংসের একটা স্তর দিন। এভাবে স্তরে স্তরে খিঁচুড়ি ও মাংস দিয়ে শেষে খিচুড়ি দিন। সবশেষে খিঁচুড়ির উপর আবার একটু ঘি দিন।তারপর ভালভাবে ঢাকনা দিয়ে অল্প আঁচে ১ ঘন্টা মত দমে রাখুন। ওভেন এ দিতে চাইলে ওভেন ২০০ ডিগ্রি ফারেনহাইটে প্রিহিট করে নিন। প্রিহিট হয়ে গেলে ওভেন ওয়ার্ম এ দিয়ে ঢেকে দেওয়া ট্রেটি দিয়ে ১ ঘন্টা মত রাখুন।৮. মুগ ডাল দিয়ে রেস্টুরেন্ট স্টাইলের খাসির মাংসসকালের নাস্তায় রুটি কিংবা পরোটার সঙ্গে মুগ ডাল দিয়ে রান্না করা খাসির মাংস যেন অসাধারণ এক খাবার। বাংলাদেশ জার্নালের আজকের আয়োজনে থাকছে মুগ ডাল দিয়ে খাসির মাংসের রেসিপি। দেখে নিন রেস্টুরেন্ট স্টাইলের এই রেসিপিটি।যা যা লাগছে:খাসির মাংস ৭৫০ গ্রাম, মুগ ডাল ১ কাপ, পেঁয়াজ কুঁচি ১ কাপ, টমেটো কুঁচি ১/২ কাপ, দারুচিনি ২/৩ টি (ভেজে দিতে হবে), এলাচ ৪/৫ টি, লবঙ্গ ৫/৬ টি, গোলমরিচ ৫ টি, কাঁচা মরিচ ১ টি (ছেঁচে নেয়া), আদা বাটা ২ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, গরম মশলা বাটা (দারুচিনি ১ টুকরা, এলাচ ২ টি, লবঙ্গ ২ টি, তেজপাতা ১ টির অর্ধেক সব একসাথে বেটে নেয়া) হলুদ ১ চা চামচ, ধনিয়া গুঁড়া ১ চা চামচ, টালা জিরা গুঁড়া ১ ১/২ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া ২ চা চামচ, তেল ৪ টেবিল চামচ।প্রণালী:প্রথমে ডাল শুকনা প্যানে টেলে নিয়ে ভাল করে ধুয়ে পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। এবার চুলায় প্যান বসিয়ে তেল গরম করুন। তেল গরম হলে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে দিন। সোনালি রং হয়ে গেলে লবঙ্গ, দারুচিনি, সাদা এলাচ, কালো এলাচ, জিরা ও শুকনা মরিচ দিয়ে দিন। নেড়েচেড়ে হলুদ ও মরিচের গুঁড়া দিয়ে দিন। এবার আদা ও রসুন বাটা দিয়ে দিন। সব মসলা কষিয়ে সামান্য একটু পানি দিন। এবার স্বাদ মতো লবণ ও গুঁড়া মসলা দিন।৪ থেকে ৫ মিনিট ধরে কষিয়ে নিন মসলা। পানি শুকিয়ে গেলে অল্প অল্প করে পানি দিয়ে নাড়ুন। মসলার উপরে তেল ভেসে উঠলে তেজপাতা দিয়ে তারপর মাংস দিয়ে দিন। ৩ থেকে ৪ মিনিট কষিয়ে নিন। এক কাপ পানি দিয়ে প্যান ঢেকে দিন ঢাকনা দিয়ে। চুলার আঁচ মিডিয়াম করে অপেক্ষা করুন মাংস সেদ্ধ না হওয়া পর্যন্ত। মাঝে মাঝে ঢাকনা খুলে নেড়ে মাংস নেড়ে দিতে হবে। মাংস সেদ্ধ হয়ে গেলে ডাল দিয়ে নাড়ুন কয়েক মিনিট। খানিকটা লবণ দিয়ে নেড়ে মিশিয়ে দিন।আধা কাপ পানি দিন খানিকটা ঝোল রাখার জন্য। এতে কয়েকটা আস্ত কাঁচামরিচ ছেড়ে দিয়ে চুলার জ্বাল একদম কমিয়ে প্যান ঢেকে দিন। ৫ থেকে ৭ মিনিট রান্না করুন মৃদু আঁচে। খানিকটা ঝোল থাকতে থাকতে নামিয়ে ফেলুন, কারণ নামানোর পর ঝোল টেনে নেবে ডাল। ভাজা জিরার গুঁড়া ও গরম মসলার গুঁড়া দিয়ে নেড়ে নামিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

৯. ঝাল ঝাল খাসির মাংস

গরম গরম ভাত কিংবা পোলাওয়ের সঙ্গে ঝাল খাসির মাংসের তরকারি হলে কেমন হয়? আজ রাতেই রান্না করে ফেলতে পারেন মজাদার খাসির মাংস ভুনা। জেনে নিন রেসিপি-

উপকরণ

খাসির মাংস- ১ কেজি

আলু- ২টি

পেঁয়াজ- ২টি

রসুন- ৬ কোয়া

আদা- ১ ইঞ্চি টুকরা

টমেটো- ৩টি

গোলমরিচ- ১ চা চামচ

আস্ত লবঙ্গ- ১/২ চা চামচ

জিরা- ১ চা চামচ

মাংসের মসলা- ২ টেবিল চামচ

গরম মসলা- ১ চা চামচ

হলুদ গুঁড়া- ১ চা চামচ

মরিচ গুঁড়া- ১ চা চামচ

তেল- ৫ টেবিল চামচ

ধনেপাতা কুচি- ১/২ কাপ

লবণ- স্বাদ মতো

প্রস্তুত প্রণালী

পেঁয়াজ, রসুন ও আদা একসঙ্গে বেটে নিন। লবঙ্গ, জিরা ও গোলমরিচ একসঙ্গে গুঁড়া করুন। আলু মাঝখান দিয়ে কেটে নিন। ১ টেবিল চামচ তেল গরম করে ১/৪ চা চামচ জিরা ও এক চিমটি হলুদ গুঁড়া দিয়ে আলু ভাজুন ২ মিনিট। আরেকটি পাত্রে তেল হালকা গরম করে মরিচ গুঁড়া দিয়ে নেড়ে পেঁয়াজ, আদা ও রসুন বাটা দিন। কয়েক মিনিট পর গুঁড়া মসলা, মাংসের মসলা, মরিচ গুঁড়া, হলুদ গুঁড়া দিয়ে পাঁচ মিনিট নাড়ুন। মসলা তেল ছেড়ে দিলে মাংস দিয়ে ভালো করে নাড়াচাড়া করে টমেটো কুচি ও আলু দিয়ে দিন। আরও কিছুক্ষণ নাড়ুন। ২ কাপ গরম পানি দিয়ে মাংস যতক্ষণ সেদ্ধ না হয় ততক্ষণ রান্না করুন। মাংস সেদ্ধ হয়ে গেলে গরম মসলা গুঁড়া ও ধনেপাতা কুচি ছিটিয়ে পরিবেশন করুন গরম গরম খাসির মাংস ভুনা।

১০. কষা খাসির মাংস

খাসির মাংসের পদ সকলের প্রিয়। তা আবার যদি হয় কষানো মাখো মাখো। ওহ আর কথাই নেই, গরম ভাত কি চালের রুটি দিয়ে পেট পুরে খেয়ে ফেলা যায়। বাসায় মেহমান এলে কিংবা বিশেষ কোন অনুষ্ঠানে এই পদ তৈরি করে প্রসন্ন করতে পারেন সকলকে। আজ ২৪ লাইভ বাংলা নিউজের দর্শকদের জন্য থাকছে কি ভাবে তৈরি করবেন কষা খাসির মাংস। আসুন দেখে নেওয়া যাক।

উপকরনঃ১. খাসীর মাংস – ১/২ কেজি২. থেতানো সাদা এলাচ – ৬ টি৩. থেতানো কালো এলাচ – ২ টি৪. দারচিনি – ৩ ফালি৫. পেঁয়াজ মোটা চাকা করে কাটা – ১ কাপ৬. পেঁয়াজ পাতলা চাকা করে কাটা – ২ চা চামচ৭. তেজপাতা – ২ টি৮. আধা চেরা কাঁচা মরিচ – ৩ টি৯. আদা বাটা – ২ চা চামচ১০. রসুন বাটা – ২ চা চামচ১১.ধণন গুড়া – ১ চা চামচ১২. জিরা গুড়া – ১ চা চামচ১৩. আস্ত জিরা – ১ চা চামচ১৪. সয়াবিন তেল – ১/২ কাপ১৫. লবন– পরিমান ম মত১৬. কাচামরিচ ফাড়ি– ৫/৬ টি

প্রনালীঃ১.প্রথমে মাংস গুলো ছোট টুকরো করে কেটে ভাল করেধুয়ে নিন২. একটি পরিস্কার পাতিলে ধোয়া মাংস নিয়েপাতলা পেঁয়াজ বাদে সব মশলা দিয়ে ভাল করে১০ মিনিট মাখিয়ে রাখুন৩. এবার চুলায় দিয়ে মাঝারী আঁচে রান্না করুন৪. ঝোল ফুটলে আঁচ কমিয়ে দিন৫. মাংস সিদ্ধ কাচামরিচ দিন তারপর হলে আঁচ একটু বাড়িয়ে দিন৬. ঝোল ঘন হলে নামিয়ে রাখুন৭. কড়াইয়ে তেল দিন৮. তেল গরম হলে পাতলা চাকা পেঁয়াজ দিন৯. পেঁয়াজ বাদামী হলে গোটা জিরে ফোড়ন দিন১০. এরপর মাংস গুলো দিন১১. মাখা মাখা হলে নামিয়ে পরিবেশন করুন।

About admin2

Check Also

ইলিশ পোলাও

ইলিশ গ্রেভী তৈরিঃ • ইলিশ মাছ: বড় ৮ টুকরা • টকদইঃ ২টেবিল চামচ • পিঁয়াজ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.